রিমেক থেকে যদি দারুণ কিছু হয় তাহলে রিমেক ই ভাল

মুভিটি দেখার পর টিভিতে surf excel এর একটা এ্যাড এর কথা মনে পরে গেল। মানে এ্যাড টা ছিল এ রকম – দাগ থেকে যদি দারুন কিছু হয় তাহলে দাগই ভাল।
সালমান খানের ক্ষেত্রে যদি বলি 😌 রিমেক থেকে যদি দারুণ কিছু হয় তাহলে রিমেক ই ভাল 🙂।

মানে রিমেক থকে যদি ক্যারিয়ার বেঁচে যায় তাহলে রিমেকই ভাল। মুভিটি তেলেগু মুভি পকিরি থেকে রিমেক করা হয়ছে অভিনয়ে ছিলেন মহেশ বাবু,তামিলে বিজয় তাই এ কথা বললাম অার কি 🙂।

একটা সময় ছিল সেট ম্যাক্স চ্যানেলে কয় দিন পর পর মুভিটি দিত যখনই সময় পেতাম কখনো মিস করতাম না । অাসলে অায়শা টাকিয়ার এর প্রতি ঐ সময় থেকে একটা অন্য রকম ভাল লাগা কাজ করত🥰। যার কারন মুভিটা দেখার সময় কখন বোরিং ফিল হত না।

স্পেশালি তার মায়াবি লুক ও ফিগার জন্য

মুভিতে সালমান খানের স্টাইল গুলো জোস ছিল অার তার এ্যাটিটুড ছিল অন্য লেভেলের। মানে একই দুই চার দশ গুন্ডাকে পিটাই অন্য অবস্থা করত অথছ তার গায়ে একটা অাচর লাগত না।

অার তার ফাইট সিকুয়েন্স গুলো ছিল একদম সাউথ ইন্ডিয়ান মাসালা টাইপের মানে মুভিটি দেখার সময় অন্য রকম ভাব চলে অাসে অার কি। অার কমেডি সিন গুলো নিয়ে কি বলব 😄 এখনও দেখতে বসলে হাসতে হাসতে অন্য অবস্থা হয়ে যায়। লিফ্টে মোবাইল ভাইব্রেশন এর সিন,পুলিশ রে বোকা বানাইয়া মজা নেওয়া সিন 😌 সেই লেভেলের ছিল -চারস গান্জা কা ধান্ধা করতা হে তু।

অার love me love me গানরে অামি ভাবতাম লাম্বে লাম্বে🙂। যাই হোক গান গুলো মোটামুটি ভালই ছিল সব গুলো। মুভিটি কে সালমান খানের লাইফ চেঞ্জার বলতে পারেন । মানে এক বারে অচল হয়ে যাওয়া ক্যারিয়ার এই সিনেমার ভিতর দিয়ে সচল হয়ে উঠে অার কি।

অনেকে বলতে পারেন ভাই রিমেক মুভি তো রিমেকই।অরিজিনাল এর সাথে এর তুলনা কোন ভাবে চলে না। অাসলে পারফর্মেন্স,মেকিং সব মিলিয়ে তুলনামূলক ভাবে তামিল এবং তেলেগু ইন্ডাস্ট্রির থেকে এটাকে অনেক বেটার লেগেছে আমার।

স্পেশালি অায়শা টাকিয়া🥰 বড় একটা ফ্যাক্টর ছিল। মুভিতে তার সেরা ডাইলগ হল🙂 – এক বার জো ম্যায়নে কমিটমেন্ট কারদি তো উস্কি বাদ ম্যায় খুদ কো ভি নেহি শুনতা😉। তিনটি মানুষ, তিনটি জীবন আর তিনটি জীবনের তিনটি ভিন্ন স্বাদ

  • Karwaan ( 2018)
  • Bollywood
  • Road/Drama
  • IMDb Rating :7.5/10(13,566)

(নো স্পয়লার)

জানেন একটা মুভির সার্থকতা কোথায়? যখন দর্শকরা মুভিটার ভিতর পুরাপুরি ডুবে থাকে, কখন শেষ হলো তার হিসেব থাকে না, দেখা শেষে তৃপ্তির ঢেকুরের মাঝে মুখ থেকে আহা! শব্দটি বের হয়। ঠিক তখনই সার্থক হয় পরিচালক, সার্থক হয় অভিনেতারা, সার্থক হয় সম্পূর্ণ মুভিটা।

তবে একটা জিনিস কি জানেন কিছু মুভি দর্শকদের মন জয় করতে পারলেও বক্স অফিসের মন জয় করতে পারে না। বক্স অফিসে ব্যর্থ হলেও এসব মুভি মানুষের হৃদয়ে গেঁতে যায়। সেইরকমই একটা মুভি হলো Karwaan।

ইন্ডিয়ান দর্শকদের মন বুঝা বড় মুসকিল, তারা ভালোর মর্মতা সময় চলে যাওয়ার পর বুঝে। যার কারণে অনেক বস্তা পঁচা মুভিরে হিট বানায় দেয় আবার অনেক ভালো মুভিরে ফ্লপ বানায়।

এক কথায় Simple, sweet and beautiful শব্দি তিনটি মিলে Karwaan মুভিটি। গল্পটা অসাধারন আর সাথে প্রয়াত ইরফান স্যারের অসাধারন অভিনয় এবং তার সঙ্গে প্রিয় দুলকার সালমান৷ সিনেমাটোগ্রাফি কথা নাই বা বল্লাম। শুধু তাকিয়ে থাকতে ইচ্ছা করবে।

“এটা মুভি নয় যেন একগ্লাস মাদক মিশ্রিত অমৃত ”
লাইনটা ভালো লাগছে বলে একটা ভাইয়ের পোস্ট থেকে নিলাম।
বারবার দেখলেও বোর লাগে না এসব মুভি।

#হ্যাপি_ওয়াচিং

☆☆☆☆ NO SPOILER ☆☆☆☆

  1. নাম: JANNAT (২০০৮)
  2. জনরা: ক্রাইম | রোমান্স
  3. IMDb: ৬.৯/১০
  4. Rotten Tomatoes: ৬২%
  5. বাজেট: ₹১০ কোটি
  6. বক্স অফিস: ₹৪১ কোটি

Emraan Hashmi এর বর্তমান সময়টা মোটেও ভালো যাচ্ছে না

কিন্তু একটা সময় ছিলো যখন ইমরান হাশমীর মুভির জন্য সবাই পাগল ছিল। ইমরান হাশমীর সেই স্বর্ণযুগের একটি মুভি হলো জান্নাত। জোয়া ও তাঁর প্রেমে পড়ে যায়। কিন্তু হঠাৎ হাতে এত টাকা পাওয়ায় অর্জুনের হাব-ভাব অনেক পাল্টে যায়। এরপর কি হয় তা নাহয় মুভি দেখেই জেনে নিয়েন।

আমি অনেক দেরি করেই মুভিটি দেখেছি। আর দেখার পরই আমার পছন্দের তালিকায় উঠে এসেছে এই মুভি। মুভিটি পরিচালনা করেছেন কুনাল দেশমুখ। এতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইমরান হাশমী ও Sonal Chauhan.

কাহিনী সংক্ষেপ: অর্জুন (ইমরান হাশমী) ভবঘুরে বেকার এক যুবক, যে কিনা রাতারাতি বড়লোক হওয়ার স্বপ্ন দেখে। একদিন তাঁর সাথে জোয়া (সোনাল চৌহান) এর দেখা হয়। তাঁকে দেখেই অর্জুন তাঁর প্রেমে পড়ে যায়।

এখন মেয়ে পটাইতে গেলে পকেটে টাকা তো লাগবেই না? এই অর্জুন একটা কারণ পেয়ে গেল বড়লোক হওয়ার। এরপর সে ক্রিকেটে বাজি লাগানো শুরু করে। নিজের সৌভাগ্যের জোড়ে খুব তাড়াতাড়িই সে অনেক টাকার মালিক হয়ে যায়।.
মুভির গল্পটা অনেক সুন্দর। তাঁর চেয়েও সুন্দর মুভির গানগুলো। এত বছর পরেও Zara Sa, Judaai, Haan Tu Hain গানগুলো এখনও বেশ জনপ্রিয়। মুভিতে সবার অভিনয় বেশ ভালো ছিল।

রোমান্স, থ্রিলার, কমেডি, ট্রাজেডি ও ক্রিকেট এর হালকা ছোঁয়া। সবকিছু মিলিয়ে উপভোগ করার মতো দারুণ একটা মুভি। যাঁরা মুভিটি দেখেননি বা আবার দেখতে চান তাঁরা ইউটিউবে মুভিটি পেয়ে যাবেন। এই মুভির একটা সিক্যুয়েল ও রয়েছে। সেটাও এই মুভির মতোই অনেক সুন্দর। 🧡
ব্যক্তিগত রেটিং আমি 🔟 এর মধ্যে দেবো

Leave a Reply