থ্রিলারে ভরপুর, পরতে পরতে থাকা টুইস্ট আর মাইকেল স্কোফিল্ডের অপার বুদ্ধিমত্তা কাকে মুগ্ধ করবে না

আমার জীবন থেকে ৬৩ ঘণ্টা ব্যয় করেছি শুধুমাত্র এই ওয়েব সিরিজটি দেখে এবং তা নিয়ে আমার একটুখানিও অভিযোগ নেই (শেষ ৬.৭৫ ঘন্টা বাদে)। আর থাকবেই বা কেন?

থ্রিলারে ভরপুর,পরতে পরতে থাকা টুইস্ট আর মাইকেল স্কোফিল্ডের অপার বুদ্ধিমত্তা কাকে মুগ্ধ করবে না!

✅ স্পয়লার নেই✅

  • TV Series: Prison Break (2005–2017).
  • Runtime: 1 hour 20min
  • Genres: Action, Crime, Drama, Mystery, Thriller.
  • IMDb: 8.3/10 (42,3779)

২০০৩ সালে পল শিউরিং এর মাথায় একটি আইডিয়া আসে। আইডিয়াটির কেন্দ্রীয় ভাব ছিল এরকম, “একজন লোক অন্য কাউকে মুক্ত করার লক্ষ্যে ইচ্ছাকৃতভাবে জেলে যাবে কোন এক নিরপরাধ মানুষকে জেল থেকে উদ্ধার করার জন্য।

আইডিয়াটি প্রযোজক ডন প্যারোজের ভালো লাগে। পরে পল শিউরিং ২০০৩ সালে তিনি ফক্স ব্রডকাস্টিং কোম্পানিকে কাহিনীর সারমর্ম জানান। কিন্তু এ ধরনের কাহিনী নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি সিরিয়াল চালিয়ে নেয়া সম্ভব কি-না চিন্তা করে কোম্পানি তা প্রত্যাখ্যান করে। অন্যান্য কয়েকটি কোম্পানিকে কাহিনীর সারমর্ম জানালে তাদের প্রতিক্রিয়া ছিল একইরকম।

২০০৪ সালে ফক্স নেটওয়ার্ক তাদের মত পাল্টিয়ে পল শিউরিং এর কাহিনী নিয়ে সিরিয়াল নির্মাণের কাজ শুরু করে। ১৩ পর্ব নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়ে প্রথম সিজনটা সাজিয়েছিলেন নির্মাতারা। কিন্তু সিরিজটির তুমুল জনপ্রিয়তার কারণে প্রথম সিজন শেষ হয় ২২ পর্বে। পরে যার বিস্তৃতি ঘটে ৯০ পর্ব পর্যন্ত।

কাহিনী সংক্ষেপঃ

মিথ্যা অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া বড় ভাইকে জেল থেকে পালিয়ে আসার উদ্দেশ্য নিয়ে জেলে যায় মাইকেল স্কোফিল্ড। কিন্তু তার মধ্যেই লিংকন ব্যুরস (মাইকেল স্কোফিল্ড এর ভাই) এর ফাঁসির আদেশ এসে যায়।

যদি ভেবে থাকেন, “কী আর হবে! নায়ক তার ভাইকে নিয়ে জেল থেকে পালিয়ে আসবে তার ভাইয়ের ফাঁসি হওয়ার পূর্বেই। কাহিনী শেষ।”
তবে জেনে রাখুন, “Escaping is just the beginning!”

ব্যক্তিগত মতামতঃ

ফার্স্ট সিজনের ফার্স্ট এপিসোড থেকেই প্রচুর পরিমাণে ফাস্ট এবং থ্রিলারঘন ছিল “Prison Break”. সিরিজটি দেখার সময় টয়লেটের চাপ আসলেও প্রচুর পরিমাণে রাগ উঠে যেত আমার😐 প্রথমবারের মতো পুরো এক রাত জেগে যে জিনিসটি নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম, তার নাম “Prison Break.” প্রথম আলো পত্রিকা একবার লেখা হয়েছিল, “এই টিভি সিরিজ একটা ‘ফাঁদের’ মতো।

একবার দেখা শুরু করেছেন তো মরেছেন!” এই কথাটিকে আমি প্রতি এপিসোডেই ফিল করেছি।
সিজন ১ থেকে ৪ পর্যন্ত সব ভালোই ছিল, কিন্তু হঠাৎ করে সিজন ৫ টা কেমন যেন অন্যরকম লাগলো (ভালো লাগেনি বলাটাই শ্রেয়)। আমার মতে, সিজন ৪ এই এটি শেষ করে দেওয়া উচিত ছিলো।

যারা থ্রিলারধর্মী কিছু পছন্দ করেন তাদের জন্য হাইলি রিকমেন্ডেড থাকবে এটি। এছাড়াও যারা মনে করেন টিভিসিরিজগুলো সব স্লো প্রকৃতির হয়, তাদেরকেও বলবো, “Prison Break দেখুন, ধারণা পাল্টান!”

Happy Watching

আপাতদৃষ্টিতে ২০২১কে ওটিটি প্লাটফর্মের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বছর বলে মনে হচ্ছে। অনেক গুণী নির্মাতার কাজ ওটিটিতে প্রকাশ পেতে চলেছে এ বছর। দেশি প্লাটফর্ম সিনেমাটিক, চরকি এবং ভারতীয় প্লাটফর্ম হইচই, জি ফাইভে বেশ কিছু ওয়েব ফিল্ম ও সিরিজ মুক্তি পাবে।

আজ কথা হবে এ বছর ওটিটি প্লাটফরমে আসতে চলেছে এমন কিছু উল্লেখযোগ্য “ওয়েব সিরিজ” নিয়ে.

১.কন্ট্রাক্ট
পরিচালনা : কৃষ্ণেন্দু চট্টোপাধ্যায় ও তানিম নূর
অভিনয় : চঞ্চল চৌধুরী, আরিফিন শুভ, মম, তারিক আনাম খান, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যয়, রওনক হাসান, ইরেশ যাকের ও মিথিলা।
ওটিটি : জি-ফাইভ
মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিনের উপন্যাস ‘কন্ট্রাক্ট’ অবলম্বনে পলিটিক্যাল থ্রিলারধর্মী সিরিজ। প্রথম সিজন ছয় পর্বের। জনপ্রিয় দুই চরিত্র বেগ-বাস্টার্ডের দেখা মিলবে এই সিরিজে। মুক্তি পাবে এপ্রিলে। আমি ব্যাক্তিগত ভাবে এই সিরিজটা নিয়েই বেশী আগ্রহী। আরেফিন শুভ ও চঞ্চল চৌধুরী কে একফ্রেমে দেখার অপেক্ষায়….

২.মরীচিকা
পরিচালনা : শিহাব শাহীন
অভিনয় : আফরান নিশো, মাহিয়া মাহি, সিয়াম আহমেদ ও জোভান।
ওটিটি : চরকি
জনপ্রিয় এক মডেল হত্যাকাণ্ডের সত্য ঘটনার ছায়া অবলম্বনে সিরিজটি। গত বছরের আগস্ট ১৪ এর পর আবার ওয়েব সিরিজ নির্মাণ করছেন গুণী নির্মাতা শিহাব শাহীন। তারকাবহুল এ সিরিজটি খুব তাড়াতাড়ি মুক্তি পেতে পারে যাত্রা শুরুর অপেক্ষায় থাকা প্রথম আলোর ওটিটি প্লাটফর্ম ‘চরকি’তে।

৩.বিলাপ
পরিচালনা : সানী সানোয়ার ও ফয়সাল আহমেদ
অভিনয় : জাকিয়া বারী মম, রুনা খান, শরিফুল রাজ, শবনম ফারিয়া প্রমুখ।
ওটিটি : সিনেমাটিক
মাদকের উপর নির্মিত ডার্ক থ্রিলার সিরিজটির শুটিং সম্পন্ন। শিগগিরই মুক্তি দেবেন বলে জানালেন পরিচালক।

৪.ভালো থাকিস তোরা
পরিচালনা : মিজানুর রহমান আরিয়ান
অভিনয় : চঞ্চল চৌধুরী, অপূর্ব
ওটিটি : হইচই
শুরুতে নাম ছিল ‘ভালো থাকিস বাবা’। নাম বদলে এখন হয়েছে ‘ভালো থাকিস তোরা’। এ বছরই মুক্তি পাবে সিরিজটি। তাকদীরের পর চঞ্চল চৌধুরী আবার আসছেন হইচইয়ে।

৫.যদি…কিন্তু…তবুও
পরিচালনা : শিহাব শাহীন
অভিনয় : জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ও নুসরাত ফারিয়া।
ওটিটি : জি-ফাইভ
জানুয়ারির মধ্যেই শিহাব শাহীনের এই ওয়েব ফিল্মটির শুটিং শেষ হবে। মুক্তি পাবে পহেলা বৈশাখে।
সুত্র: কালের কন্ঠ

রান ফরেস্ট রান

জীবনের দেখা কিছু সেরা সিনেমার তালিকায় ফরেস্ট গাম্প ( Forrest gump ) নিজ জায়গা পাকাপোক্ত করে নিয়েছে। এই সিনেমার সবচেয়ে বিশেষ যে দিক তা হলো এটি আপনাকে বাঁচতে শেখাবে, জীবনে চলার পথে সব বাঁধাকে বুড়ো আঙুল দেখাতে শেখাবে, কেউ আপনাকে বোকা বললে তাকে বলতে শেখাবে “Stupid is as stupid does”,।

ফরেস্ট গাম্প এমন এক ছবি যা যে কোনো সাধারণ মানুষকে বেঁচে থাকার, বড় হওয়ার এবং সরল-সুন্দর হওয়ার স্বপ্ন দেখায়। কেন জানিনা সিনেমাটি যতবারই দেখি সিনেমা শেষে স্তব্ধ রজনীর নীরবতা আমাকে জীবনের প্রতি গাঢ় করে দিয়েছে, বারবার আমার আত্মার আকুতি শুনতে ও নির্মমতাকে উপেক্ষা করতে চোখ বন্ধ করে উৎসাহ দিয়েছে ।

ফরেস্ট গাম্পের জীবনে এমন কিছু সময় সিনেমাতে আসে যখন ফরেস্টের বেঁচে থাকার কোনো কারণ থাকে না , তার জীবনের আদর্শ তার মা এইডসে মারা যায়, যাকে অনেক ভালোবাসতো সেই জেনিও ছেড়ে চলে যায়, সবচেয়ে কাছের বন্ধু বাব্বাও মারা যায় তারই চোখের সামনে, তার কাছের লেফ. ড্যান ও তার থেকে দূরে চলে যায় তবুও ফরেস্ট বেঁচে থাকে জীবনের নিষ্ঠুরতাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বেঁচে থাকে।

“My mama always said life was like a box of chocolates. You never know what you’re gonna get.” আমরা সত্যি জানি না জীবন কখন কাকে কি দেবে তাই ভালো কিছুর জন্য অপেক্ষা করা অমূলক নয়।
আমি ফরেস্ট গাম্প দেখলাম ও মেনে নিলাম, বিশ্বাস করে নিলাম- জীবনের রং যত খারাপ হোক, সে রং যেকোনো সময় রংধনু হয়ে আপনাকে পাল্টে দিতে পারে।

Leave a Reply