ডিভিডি বিক্রি করে ২৫ মিলিয়ন ডলার আয় করে মুভিটি!

চলচ্চিত্র শিল্প অনেকটা লটারির মতো। ভালো শিল্পী, কাহিনী এবং পরিচালক – এসব থাকলেই যে বক্স অফিস বাজিমাত করা যাবে, তার কোন নিশ্চয়তা নেই। অসাধারণ অনেক মুভি মুক্তি পেয়েই মুখ থুবড়ে পড়েছে সিনেমা হলে, দর্শক – সমালোচকদের শুভদৃষ্টি না পেয়ে ” ফ্লপ সিনেমা ” হিসেবে তালিকাভুক্ত হচ্ছে হরহামেশাই।

কিন্তু ব্যবসায়িক সাফল্যই কি একটি ভালো মুভির প্রকৃত মানদণ্ড? এমন কিছু মুভিও রয়েছে যেগুলি হলে দর্শক না টানতে পারলেও কালের গর্ভে হারিয়ে যায়নি। সময়ের তালে এসব ব্যর্থ মুভিগুলি একসময় পেয়েছে কাল্ট ক্ল্যাসিকের মর্যাদা।

এরকমই কিছু মুভি নিয়ে আজ লিখতে বসা। যেগুলি মুক্তির পরে ব্যবসায়িকভাবে ফ্লপ হলেও পরবর্তীতে পেয়েছে মাস্টারপিসের মর্যাদা।

সর্বকালের সেরা কিছু সাই – ফাই মুভি

  • Movie – Blade Runner
  • Release Year – 1982
  • Directed by – Ridley Scott
  • Budget – 30 million USD
  • Box Office – 41.5 million USD
  • IMDB – 8.1
  • Personal Rating – 9

সর্বকালের সেরা কিছু সাই – ফাই মুভির দলে অনায়াসে জায়গা করে নিতে পারে ১৯৮২ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এই মুভি। Philip K Dick এর গল্প অবলম্বনে নির্মিত মুভিটির মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন Harrison Ford. মুভির ঘটনা আবর্তিত হয়েছে চারটি রোবট আর একজন পুলিশ অফিসারকে ঘিরে।

ভবিষ্যতের পৃথিবীতে মানুষের মতোই দেখতে রোবট বানানো হয়। চারটি রোবট দুরভিসন্ধি করে পালিয়ে যায় তাদেরকে যে বানিয়েছে তার খোঁজে। পুলিশ অফিসার Rick Deckard এর উপর দায়িত্ব পড়ে সেই রোবটগুলিকে খুঁজে বের করার জন্য।

আশির দশকে মুক্তিপ্রাপ্ত এই মুভি অন্য সব গতানুগতিক কল্পবিজ্ঞান মুভির মতোই দর্শকদের কাছে গৃহীত হয়েছিলো। বক্স অফিসে ” Blade Runner ” কে পাল্লা দিতে হয়েছিলো ” Star Treck “, ” The Thing ” এবং ” E.T. ” – এমন সব মুভির সাথে। নন্দিত এসব মুভির ভীড়ে সিনেমা হল থেকে হারিয়ে যায় এই ক্ল্যাসিক মুভিটি।

  • Movie – Children of Men
  • Release Year – 2006
  • Directed by – Alfonso Cuaron
  • Budget – 76 million USD
  • Box Office – 70 million USD
  • IMDB – 7.9
  • Personal Rating – 8.5

সময়ের সেরা চলচ্চিত্র পরিচালকদের একজন Alfonso Cuaron

মেক্সিকান এই পরিচালক ” Roma “, ” Gravity ” এর মতো মুভি পরিচালনা করেছেন। ২টি মুভির জন্যই পেয়েছেন সেরা পরিচালক ক্যাটাগরিতে অস্কার।

Harry Potter সিরিজের ৩য় পর্ব ” Harry Potter and the Prisoner of Azkaban ” মুভিরও পরিচালক ছিলেন তিনি। কিন্তু ২০০৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত মুভি ” Children of Men ” মুভিটি কেন যেন নজর কাড়তে পারেনি।

সাই – ফাই ঘরানার এই মুভি ভবিষ্যতের অনিশ্চিত পৃথিবীকে নিয়ে। মুভিতে দেখা যায়, ২০২৭ সালে পৃথিবীর সব নারী বন্ধ্যা হয়ে যান। কোন শিশু জন্মাচ্ছে না সারা বিশ্বে। হঠাৎ খোঁজ পাওয়া যায় এক অন্তঃসত্তা নারীর।

একটি নতুন শিশুর জন্মই হয়তো বাঁচাতে পারে মানব সভ্যতাকে। মূল চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন Clive Owen, তার উপরেই দায়িত্ব পড়ে সেই অলৌকিক নারীকে নিরাপদ স্থানে পৌঁছে দেয়ার। চিত্রনাট্য বিভাগে একটি মাত্র অস্কার মনোনয়ন পায় এই মুভিটি।

কিন্তু পরবর্তীতে ডিভিডি বিক্রি করে ২৫ মিলিয়ন ডলার আয় করে মুভিটি, এতে নির্মাণ ব্যয়ের ক্ষতি কিছুটা হলেও কমে আসে। বিগত দশকের সেরা কয়েকটি মুভির মধ্যে ” Children of Men ” একটি।

  • Movie – Fight Club🤔🥺
  • Release Year – 1999
  • Directed by – David Fincher
  • Budget – 63 million USD
  • Box Office – 101 million USD
  • IMDB – 8.8
  • Personal Rating – ❤️

Chuck Palahniuk এর সাইকোলজিক্যাল উপন্যাস অবলম্বনে বানানো হয় একই নামের মুভি

আজ ” Fight Club ” এর পাশে মাস্টারপিসের খেতাব জুটে গেছে, উপন্যাসটিও সেই সময় বেস্টসেলার হয়।

অথচ মুভিটির বিচিত্র বিষয়বস্তুর জন্য চিন্তায় পড়ে গিয়েছিলো প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ” 20th Century Fox “. মুভিতে ভোগবাদী সমাজ ব্যবস্থাকে বিদ্রুপাত্মক প্লটের মাধ্যমে তুলে ধরেন পরিচালক David Fincher.

এমন কাহিনী নিয়ে মুভি সচরাচর দেখা যায় না। Movie Critics রা মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেন মুভিটিকে নিয়ে। Brad Pitt আর Edward Norton এর মতো তারকা থাকা সত্ত্বেও মুভিটি বক্স অফিসে ব্যর্থ হয়।

কয়েক বছর পর মুভিটির ডিভিডি প্রকাশ করা হয়। তারপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ১ কোটি ৩০ লাখ ডিভিডি বিক্রি করে 20th Century Fox তুলে নেয় ১০০ মিলিয়ন ডলার।

  • Movie – The Shawshank Redemption🤔🥺
  • Release Year – 1994
  • Directed by – Frank Darabont
  • Budget – 25 million USD
  • Box Office – 58.3 million USD
  • IMDB – 9.3
  • Personal Rating – ❤️

IMDB Top 250 মুভিলিস্টে ৯.৩ রেটিং নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে শীর্ষস্থান দখল করে রেখেছে

“The Shawshank Redemption” কিন্তু অবাক করার মতো বিষয় হচ্ছে, মুভিটির আয় ছিলো নির্মাণ ব্যয়ের প্রায় অর্ধেক। Stephen King এর উপন্যাস থেকে বানানো এই মুভিটি Critics দের অকুণ্ঠ প্রশংসা আর Oscar এ মনোনয়ন পেলেও ব্যবসায়িক ভরাডুবির হাত থেকে বাঁচতে পারেনি।

মুক্তির পরের বছর প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান মুভিটির ক্যাসেট বাজারে ছাড়ে, পুরো যুক্তরাষ্ট্রে সেই ক্যাসেট হু হু করে বিক্রি হয়। কোটি কোটি দর্শকদের ভালোবাসায় সিক্ত হয় মুভিটি। ” American Film Institute ” এর বানানো শতাব্দীর ১০০ সেরা মুভির তালিকায় নিজের প্রাপ্য জায়গাটি পেয়ে যায় এই মাস্টারপিসটি।

  1. The Rifleman
  2. Genre: War, History
  3. IMDB:8.2
  4. Country: Latvia
  5. Year: 2019

অনবদ্য একটা ফিল্ম ছিল। এটা আমার দেখা প্রথম কোন লাটভিয়ান সিনেমা। সত্যি বলতে এখন পর্যন্ত রাশিয়ার নির্মিত যত যুদ্ধের ফিল্ম দেখেছি তার চেয়ে এই লাটভিয়ান সিনেমাটি দেখে বেশি ভালো লেগেছিল।

ভালো লাগার বেশ কয়েকটি কারণ আছে প্রথমত এখানে অযথা এদিক সেদিক কেমেরা না ঘুরিয়ে মুভির মুল গল্পতেই মনযোগ দেয়া হয়েছে, যার ফলে মনযোগ সহকারে ফিল্মটা দেখা গেছে। খুব সুন্দর রাইটিং আর তার সাথে মার্জিত অভিনয় এক কথায় সবাই যেভাবে দেখতে যায় ঠিক সেভাবেই দেখানো হয়েছে।

এখানে ফিল্মের শুরু থেকেই যুদ্ধ মাঝখানে যুদ্ধের ভয়াবহতা ও শেষে চোখে পানি এনে দেয়ার মত ইমোশনাল করে দেয়া ইনডিং দেখানো হয়েছে সব কিছু বাস্তবতার সাথে মিল রেখে যুদ্ধটাকে ও যুদ্ধের ভয়াবহতা স্বজন হারানর বেদনা সব কিছু বেশ ভালো ভাবেই উপস্থাপন করা হয়েছে।

(হাল্কা স্পয়লার)

এখানে কাহিনি প্রথম বিশ্বযুদ্ধকে কেন্দ্র করে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে জার্মানি রাশিয়া আক্রমনের সময় পুর্ব ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশেও যুদ্ধের ছোয়া লাগে। এই যুদ্ধের ভয়াবহতার মাঝেই রেইলির মা জার্মানদের হাতে খুন হয়।

নিজের দুই ছেলেকে নিয়ে তাদের পিতা সহ নিজের দেশ ও স্বজনদের বাচাতে হাজার হাজার লাটভিয়ান জার্মানির বিরুদ্ধে যুদ্ধে অস্ত্র তুলে নেয়। সিনেমাটি প্রথম বিশ্বযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী এক অফিসারের নোবেল থেকে নেয়া।

এই নোবেল দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের শেষ পর্যন্ত রাশিয়া ও বিশ্বের আরও কিছু দেশে নিষিদ্ধ ছিল কেনো ছিল তা জানতে সিনেমাটি দেখতে হবে। আশাকরি সবার ভালো লাগবে।

Leave a Reply